কিভাবে নিজেকে ডেভেলপ করবেন?

স্কিল বাড়াতে হলে শেখার কোন শেষ নেই। জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত মানুষ শিখতে পারে। শেখার কোন বয়সও নাই। তবে সব কিছু শিখতে চাওয়া হচ্ছে বোকামি। ভালো কিছু শিখুন যা আপনার ক্যারিয়ারের জন্য কাজে লাগবে। প্রতিনিয়ত ডিজিটাল দুনিয়ায় নতুন নতুন জিনিশ সংযুক্ত হচ্ছে। যে জিনিশগুলো আপনার ক্যারিয়ারের জন্য প্রয়োজন সেই জিনিশগুলি আগে শর্টআউট করুন। তারপর শেখার চেষ্টা করুন। শেখার জন্য বিভিন্ন ট্রেনিং সেন্টার আছে। তবে যাদের জন্য পয়সা খরচ করে ট্রেনিং সেন্টার অথবা সেমিনারে অংশগ্রহণ করা সম্ভব নয়, তাদের জন্যই এই লেখা।

১ আপনি নিজে আগে অনুভব করার চেষ্টা করুন, আপনি কি কি বিষয়ে পারদর্শী। কি কি বিষয় আপনার সাথে যায়। শুধুমাত্র এইসব বিষয়েই শেখার চেষ্টা করুন। যে বিষয় আপনার ক্যারিয়ারের সাথে সামঞ্জস্য না, সে বিষয়ে শেখার চেষ্টা করা মানে সময় নষ্ট করা। এগুলো পরিহার করুন। উদাহরণ দেই। ধরুন আপনি Affiliate Marketer. আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং এর সমস্ত বিষয়ে আগ্রহী হয়ে শেখার চেষ্টা করবেন এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু আপনি যদি জাভা দিয়ে প্রোগ্রাম লেখার জন্য ইউটিউব ঘাটাঘাটি করেন, ব্যাপারটা হবে হাস্যকর। এতে শুধু আপনার মুল্যবান সময়ই নষ্ট হবে।।শেখা হবেনা কিছুই। আর কিছু শিখলেও সেটা আপনার কখনো কাজে লাগবে কিনা সন্দেহ।

২। শিখতে হলে একটা জিনিশ মন থেকে ঝেরে ফেলতে হবে। সেটা হলো লজ্জা! কামিনি রায়ের কবিতা নিশ্চয় মনে আছে? করিতে পারিনা কাজ, সদা ভয় সদা লাজ, সংশয়ে সংকল্প সদা টলে… পাছে লোকে কিছু বলে।.. এই মনোভাবের জন্য আমরা অনেক কিছুই করতে পারিনা, শিখতে পারিনা। এটা পরিহার করুন। আপনি একটি বিষয়ে জানেন না, এটা লজ্জার কিছু নয়.. বরং সেই বিষয়ে জানতে চাওয়া মানে কিছু শেখার জন্য নিজেকে আপনি মোটিভেট করছেন।

৩। জিজ্ঞাসা করুন প্রচুর। প্রয়োজনে একাধিক মানুষকে প্রশ্ন করুন। কোন না কোন সোর্স থেকে আপনি উত্তর পাবেনই। অনলাইনে অনেক বিষয়ে এক্সপার্ট আছে। তাদেরকে জিজ্ঞাসা করুন। কেউ বিরক্ত হলে তাকে সরি বলে অন্য আরেকজনকে জিজ্ঞাসা করুন। আপনার জানার প্রয়োজন, সেটা যে কোন সোর্স থেকেই হোক না কেন। কেউ Deny করলে মন খারাপ না করে তাকে ধন্যবাদ দিয়ে চলে আসুন।

৪। নতুন কিছু করতে গিয়ে ভুল করতে ভয় পেলে চলবেনা। ভুল করুন। ভুল থেকেই আপনি শিখতে পারবেন। অনেক সময় ভুল হবে ভেবে কোন কাজে আমরা হাতই দেইনা। এটা মারাত্মক ভুল। মিসটেক থেকেই মানুষ কিছু শেখে। যত বেশি ভুল করবেন তত বেশি শেখার দার উম্মোচন হবে। ভুল না করলে আপনি অনেক কিছু থেকেই পিছিয়ে থাকববেন।

৬। শেখার জন্য বয়স কোন ফেক্টর না। আপনার চেয়ে বয়সে ছোট এমন কারো কাছে কিছু জানতে চাওয়া লজ্জার কিছু নয়। বরং এটা পজিটিভ। সে যদি আপনার পরিচিত হয় সে অতি উৎসাহী হয়ে আপনাকে শেখাবে। আপনার প্রতি তার এটেনশন থাকবে বেশী। আপনি জুনিয়র কারো কাছ থেকে কিছু শিখতে চাইলে বেনিফিটেড হবেন বেশি। সিনিয়ররা হয়ত ভাব দেখাবে, বলতে চাইবেনা, এভয়েড করবে, আপনাকে পিছলামি করতে হবে। কিন্তু জুনিয়র কারো কাছে কিছু জানতে চেয়ে দেখেন, আপনাকে শিখিয়ে সে সম্মানিত বোধ করবে।

সবচেয়ে বড় সোর্স ইন্টারনেট। সার্চ করুন পর্যাপ্ত পরিমানে। সব পেয়ে যাবেন।  (সংগৃহীত)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *